নোটিশঃ
দৈনিক প্রতিবেদন অনলাইন নিউজ পোর্টালের পরীক্ষামূলক সম্প্রচারে আপনাকে স্বাগতম।
সংবাদ শিরোনামঃ
গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে ফেন’সিডিলসহ দুই নারী আটক যেভাবে সন্ধান মিলেছে আবু ত্বহা মুহাম্মাদ আদনানের জোরপূর্বক গরুর মাংস খাওয়ানোকে কেন্দ্র করে ছুরিকাঘাতে যুবকের মৃত্যু মহামান্য রাষ্ট্রপতিকে নিয়ে কবি মুখলেছ উদ্দিনের লিখা “মেঘনার পাড়ে সোনার মানুষ” মাগুরার শ্রীপুরে জনসচেতনতা বাড়াতে ইউএনওর মোবাইল কোর্ট পরিচালনা নাটোরে হাজেরা ক্লিনিকে পায়ে হেটে অপারেশন থিয়েটারে ঢুকে বের হলেন লাশ হয়ে সন্ধান মিলেছে আবু ত্বহা মুহাম্মাদ আদনানের? আবু ত্বহা মুহাম্মাদ আদনানকে উদ্ধারে কাজ করছে ডিবি পুলিশ আবু ত্ব-হার আদনানকে নিয়ে ক্রিকেটার শুভর আবেগঘন স্ট্যাটাস গাইবান্ধায় সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের নিয়ে ফল উৎসব করোনাকালে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা বিষয়ে গাইবান্ধায় সচেতনতামুলক ভ্রাম্যমাণ প্রচারণা ফরিদগঞ্জে যুবদল নেতা মতিনের বাবার মৃত্যুতে আলহাজ্ব এম এ হান্নানের শোক প্রকাশ আবু ত্ব-হা আদনানের সন্ধান চেয়ে স্ত্রী ও পরিবারবর্গের সংবাদ সম্মেলন ইস’রাইলের বিরুদ্ধে কথা বলায় আবু ত্ব-হা আদনান নিখোঁজঃ ভিপি নুর কুয়াকাটার বিখ্যাত ইলিশ রেস্টুরেন্টে খাবারের দাম তালিকা
শাশুড়িকে নিয়ে জামাই উধাও, থানায় শ্বশুরের অভিযোগ

শাশুড়িকে নিয়ে জামাই উধাও, থানায় শ্বশুরের অভিযোগ

লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলায় শাশুড়িকে নিয়ে পালিয়ে গেছেন জামাই। স্ত্রীকে ফিরে পেতে জামাইয়ের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ করেছেন শ্বশুর।

মঙ্গলবার (২ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে হাতীবান্ধা থানায় এ বিষয়ে লিখিত অভিযোগ করেন শ্বশুর নাছির উদ্দিন (৫০)। তিনি নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার উত্তর সোনাখুলি গ্রামের মৃত আব্দুল আজিজের ছেলে।
ঘটনাটি ঘটেছে লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার ফকিরপাড়া ইউনিয়নের রমনীগঞ্জ গ্রামে। অভিযুক্ত জামাই এমদাদুল ইসলাম ওরফে এনদা (৩৫) উপজেলার ফকিরপাড়া ইউনিয়নের রমনীগঞ্জ গ্রামে তরিফ উদ্দিনের ছেলে। তিনি বড়খাতা বাজারের হাজি জামে মসজিদ এলা’কার অটো-রিকশার পার্স ব্যব’সায়ী। গত ২১ জানুয়ারি শাশুড়ি কে নিয়ে তিনি পালি’য়েছেন।

এদিকে এমদাদুল ইসলাম এনদার স্ত্রী নাজনী বেগম (২২) তার নির্যাতনে আহত হয়ে বর্তমানে হাতীবান্ধা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স চিকিৎসাধীর।

লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, দেড় বছর আগে নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার উত্তর সোনাখুলি গ্রামের নাছির উদ্দিনের মেয়ে নাজনী বেগমকে বিয়ে করেন এমদাদুল ইসলাম এনদা। নাজনী বেগমকে বিয়ের পর থেকে জামাই-শাশুড়ির মধ্যে সম্পর্ক গড়ে ওঠে। প্রায়ই মেয়ের বাড়ি বেড়াতে আসতেন শাশুড়ি। এ সময় স্ত্রীকে ছেড়ে শাশুড়ির প্রতি আসক্ত হয়ে পড়েন জামাই এমদাদুল। মায়ের সঙ্গে এমন সম্পর্ক দেখে প্রায়ই স্বামীর সঙ্গে ঝগড়া হতো নাজনী বেগমের।

কয়েক দিন আগে নিজ বাড়িতে স্বামীর সঙ্গে মায়ের মেলামেশা দেখে ফেলেন নাজনী। এজন্য সাতদিন ঘরে আটকে রেখে তাকে মারধর করেন স্বামী এমদাদুল। পরে নাজনী বেগম রাতে দরজা ভেঙে খালার বাড়ি উপজেলা হাতীবান্ধার ধুবনী এলাকায় পালিয়ে এসে হাতীবান্ধা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হন। এ সুযোগে শাশুড়িকে নিয়ে সটকে পড়েন ইমদাদুল।

 

সংবাদটি শেয়ার করুন




© ২০২১ | দৈনিক প্রতিবেদন কর্তৃক সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত

Design BY NewsTheme